মোবাইলে কুরআনের অ্যাপস রাখা ও পড়া যাবে?

তথ্য প্রযুক্তির এ যোগে মোবাইলে কুরআনুল কারীম পড়া ও তেলাওয়াত শোনার ব্যাপকতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মানুষ যত্রতত্র কুরআনুল কারীম তেলাওয়াত করারও সুযোগ পাচ্ছে। তবে মোবাইলে কুরআন পড়তে যেয়ে অনেকেই কুরআনের প্রতি সম্মান ও আদব রক্ষা করে না। অনেকে অজুবিহীন অবস্থা ও অপবিত্র অবস্থায় কুরআন পড়ে থাকেন। আবার প্যান্ট ও পাজামার পকেটে রেখেও ওয়াশরুমে চলে যাচ্ছেন। এসব ক্ষেত্রে কুরআনুল কারীমের অসম্মান হচ্ছে কীনা বা এভাবে কুরআন পড়া জায়েজ হবে কীনা এ বিষয়টি নিয়ে ফতোয়া দিয়েছে পাকিস্তানের জামিয়া ফারুকিয়া করাচির ইফতা বোর্ড।
দারুল ইফতার প্রকাশিত ওয়েবসাইটে বলা হয়, যখন কুরআনুল কারীম মোবাইল অথবা মেমোরি কার্ডের ভিতরে হয় অর্থাৎ স্ক্রীনে প্রকাশিত বা ওপেন না থাকে ওই অবস্থায় কুরআনুল কারীমের হরফ অস্তিত্বে থাকে না। এ জন্য এমন অবস্থায় মোবাইলের স্ক্রীনে অজুসহকারে হাত রাখা আবশ্যক নয়। তবে যখন কুরআনুল কারীম স্ক্রীনে ভাসমান বা প্রকাশিত থাকবে তখন কুরআনের অস্তিত্ব প্রমাণিত হয়। এমন অবস্থায় স্ক্রীনে হাত রাখার জন্য অজু করা আবশ্যক।
যা স্ক্রীনে দৃশ্যমান তা-ই মাত্র কুরআনের অংশ বলে প্রমাণিত হবে। এবং সেখানে অজু ছাড়া স্পর্শ করা বৈধ হবে না। এ ছাড়া মোবাইলের বাকি অংশে স্পর্শ করা জায়েজ হবে।
দ্বিতীয়ত কুরআনের অ্যাপস খোলা রেখে পাঞ্জাবি কিংবা পাজামা, প্যান্টের পকেটে রাখা কুরআনের প্রতি অসম্মানি বটে। তবে অ্যাপস বন্ধ থাকা অবস্থায় পাজামা প্যান্টের পকেটে রাখায় কোন সমস্যা নেই। মোবাইলে গান, সিনেমা নাটক রাখা নাজায়েজ ও হারাম। যেসব মোবাইলে এসব জিনিস রয়েছে সেখানে কুরআনুল কারীম রাখাও কুরআনের প্রতি অসম্মান ও বেয়াদবি। তা থেকে বিরত থাকা আবশ্যক।
সূত্র : ডেইলি পাকিস্তান।

Check Also

ফেসবুক-ইনস্টাগ্রাম অচল, টুইটারে মজা নিলো সবাই

হঠাৎ অচল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম। এ অবস্থায় সোমবার বেশিরভাগ সামাজিক যোগাযোগ …