স্বাস্থ্য সূচকে ভারত পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক:গত ২৫ বছরের স্বাস্থ্য খাতে বিভিন্ন উন্নয়ন সূচক বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে বাংলাদেশ ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এ খাতে এগিয়ে আছে। ১৯৯০ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত স্বাস্থ্য সেবার গুণগত মানও বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ এগিয়ে রয়েছে। লানচেট সাময়ীকিতে প্রকাশিত ‘গ্লোবাল বার্ডেন অব ডিজিজেস’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে।
এদিক থেকে বাংলাদেশ ৫২ পয়েন্ট নিয়ে এগিয়ে আছে যেখানে ভারত পেয়েছে ৪৪ দশমিক ৮ পয়েন্ট। পাকিস্তান ৪৩ দশমিক ১ পয়েন্ট পেয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে। ভুটান পেয়েছে ৫২ দশমিক ৭ পয়েন্ট তবে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে ভাল অবস্থানে রয়েছে শ্রীলঙ্কা এবং দেশটি ৭২ দশমিক ৮ পয়েন্ট পেয়ে স্বাস্থ্য সুবিধার দিক থেকে সার্কভুক্ত দেশের মধ্যে শীর্ষে অবস্থান করছে।
পরিসংখ্যানে দেখা গেছে আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভারত অনেক এগিয়ে গেলেও গত ২৫ বছরে স্বাস্থ্য খাতে তুলনামূলকভাবে ততটা অগ্রসর হতে পারেনি। বিশেষ করে যক্ষা, ডিপথেরিয়া, হুপিং কফ, ধনুষ্টংকার, স্থুুলতা, ক্যান্সার, হৃদরোগ, মাতৃত্বজনিত অসুস্থতায় ভারতের স্বাস্থ্য সুবিধা আশে পাশের দেশগুলোর চেয়ে এখনো অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে। এ পরিসংখ্যানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ক্রিস্টোফার মুরে জি নিউজকে জানান, ভারতে স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে একটা বৈষম্য রয়েছে যা দূর করা সম্ভব না হওয়ায় এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
অর্থাৎ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা ও চীন থেকে ভারতের স্বাস্থ্যসেবার মান বেশ খারাপ। তবে স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে ভারতের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনায় বিদেশি রোগিদের ক্ষেত্রে বিশেষ নজর দেওয়ায় এবং তুলনামূলকভাবে ভোগান্তি কম থাকায় উন্নত ও ভালো চিকিৎসা সেবা পাওয়ার আশায় লোকজন ভারতে যায়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৫ বছরে ভারতে চিকিৎসা সেবার মান সবচেয়ে খারাপ। ১৯৯০-২০১৫ সাল পর্যন্ত ১৯৫ দেশে তথ্য উপাত্ত নিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। খুব মারাত্মক নয়, যা চিকিৎসার মাধ্যমেই নিরাময় যোগ্য এমন ৩২টি রোগে মৃত্যুর হারের ওপর ভিত্তি করে এ প্রতিবেদন করা হয়েছে। দেখা গেছে এই ২৫ বছরে ভারতে এমন রোগের মৃত্যুর হার বেশি। এসব রোগের ক্ষেত্রে তারা তাদের চিকিৎসার মান বাড়াতে পারেনি।
এতে বলা হয়েছে, গত ২৫ বছরে ভারতের স্বাস্থ্যসেবা সূচক বেড়ে ১৪.১ বেড়েছে। ১৯৯০ সালে এ সূচক ছিল ৩০.৭। ২০১৫ সালে সেই সূচক বেড়ে দাড়ায় ৪৪.৮ এ। যেখানে শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্যসেবা সূচক ৭২.৮, বাংলাদেশের ৫১.৭, ভুটানের ৫২.৭ এবং নেপালের ৫০.৮।
হার্টের রোগে ভারতের স্কোর ২৫, যক্ষ্মায় ২৬, কিডনি সংক্রান্ত রোগে ২০, ডায়াবেটিসে ৩৮, অ্যাপেনডিক্সে ৩৮ এবং পেপটিক আলসারে ৩৯। নিরাময়যোগ্য ৩২ রোগের মধ্যে এই রোগ গুলো নিরাময়ের ক্ষেত্রেই ভারতের অবস্থা সবচেয়ে বেশি খারাপ। এশিয়ার সার্কভুক্ত দেশের মধ্যে ভারতের পর স্বাস্থ্যসেবা সূচকে নিচের দিকে রয়েছে পাকিস্তান ও যুদ্ধ বিধ্বস্ত আফগানিস্তান। এর মধ্যে পাকিস্তানের সূচক ৪৩.১ আর আফগানিস্তানের ৩২.৫। টাইমস অব ইন্ডিয়া

Check Also

বিদেশে নয় দেশের মাটিতেই বিয়ের পরিকল্পনা রকুল-জ্যাকির

সংবাদবিডি ডেস্ক ঃ রকুল প্রীত সিং ও জ্যাকি ভাগনানির বিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি। বিয়ের প্রস্তুতি এখন …