গ্রামীণফোনের আয় বেড়েছে ৯ দশমিক ৬ শতাংশ

২০১৬ সালে ১১ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা আয় করেছে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত একমাত্র মুঠোফোন কোম্পানি গ্রামীণফোন লিমিটেড। এই আয় আগের বছরের চেয়ে ৯ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি। গ্রামীণফোনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবেও এ আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। গ্রামীণফোন বলছে, আয়কর প্রদানের পর ২০১৬ সালে কোম্পানিটি মুনাফা করেছে ২ হাজার ২৫০ কোটি টাকা। ২০১৫ সালে এর পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৯৭০ কোটি টাকা।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত বোর্ড সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্রামীণফোনের পরিচালকমণ্ডলী ২০১৬ সালের জন্য পরিশোধিত মূলধনের ৯০ শতাংশ (প্রতিটি ১০ টাকার শেয়ারের জন্য ৯ টাকা) চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। রেকর্ড তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারিতে যাঁরা শেয়ারহোল্ডার থাকবেন, তাঁরাই এই লভ্যাংশ পাবেন। তবে তা আগামী ২০ এপ্রিল ২০তম বার্ষিক সাধারণ সভার অনুমোদন হতে হবে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ২০১৬ সালে নতুন গ্রাহক এবং সেবা থেকে অর্জিত রাজস্ব (আন্তসংযোগ আয় ব্যতীত) বেড়েছে ১২ শতাংশ। এর পাশাপাশি ডেটা রাজস্বের প্রবৃদ্ধিও অব্যাহত ছিল। গ্রামীণফোন ৫ কোটি ৮০ লাখ সক্রিয় গ্রাহক নিয়ে বছর শেষ করেছে। সক্রিয় গ্রাহক প্রবৃদ্ধির হার ছিল ২ দশমিক ২ শতাংশ। গত বছর গ্রামীণফোনে যুক্ত হয়েছে ৮৮ লাখ ডেটা গ্রাহক। এর ফলে মোট গ্রাহকের ৪২ দশমিক ৩ শতাংশ ইন্টারনেট সেবা ব্যবহার করছে।
গ্রামীণফোনের সিইও পেটার ফারবার্গ বলেন, ২০১৬ ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে গ্রামীণফোনের জন্য একটি সার্বিক সাফল্যের বছর। ডেটা রাজস্বের অব্যাহত প্রবৃদ্ধির পাশাপাশি ভয়েস খাতেও প্রবৃদ্ধি হয়েছে।
গ্রামীণফোনের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) দিলীপ পাল বলেন, সম্ভাব্য প্রবৃদ্ধি এবং পরিচালন দক্ষতা কোম্পানিকে ভবিষ্যতে লাভজনক থাকতে সহায়তা করবে।
গ্রামীণফোন ২০১৬ সালে থ্রিজি নেটওয়ার্ক স্থাপন, টুজি নেটওয়ার্কের মানোন্নয়ন এবং তথ্যপ্রযুক্তি অবকাঠামো খাতে ২ হাজার ১১০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে। এ ছাড়া কর, মূল্য সংযোজন কর (মূসক), শুল্ক ও লাইসেন্স ফি হিসেবে ৫ হাজার ৮৬০ কোটি টাকা সরকারের কোষাগারে জমা দিয়েছে, যা কোম্পানির মোট আয়ের ৫১ শতাংশ।

Check Also

দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম সার কারখানার উদ্বোধন

সংবাদবিডি ডেস্ক : দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ পরিবেশবান্ধব ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া সার কারখানার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ …