রাউদা ও পিয়া একই প্রচ্ছদের মডেল হয়েছিলেন

বিনোদন ডেস্ক:

রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ ছাত্রীনিবাস থেকে গতকাল বুধবার (২৯ মার্চ) সকাল ১১টায় আন্তর্জাতিক মডেল রাউদা আতিফের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। রাউদার বাড়ি মালদ্বীপে। তিনি বাংলাদেশে পড়ালেখা করতেন।

আন্তর্জাতিক মডেল হিসেবে গত বছর খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক ফ্যাশন পত্রিকা `ভোগ ইন্ডিয়া`র নবম বর্ষপূর্তি সংখ্যার প্রচ্ছদে মডেল হিসেবে রাউদার ছবি ছাপা হয়। একই সংখ্যায় মডেল ছিলেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও মডেল জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া।

পিয়া বলেন, “রাউদার সঙ্গে গত বছর ‘ভোগ’- এর ফটোশুটেই পরিচয় হয়েছিল। তখন সে বলেছিল যে বাংলাদেশে পড়ালেখা করছে। এরপর আর যোগাযোগ হয়নি। হঠাৎ করেই সংবাদে দেখলাম রাউদা আত্মহত্যা করেছে। এটা খুবই বেদনার।”

মাত্র ২০ বছরে এভাবে আত্মহত্যা কেন করলেন রাউদা? অনেকের মতো এই প্রশ্ন পিয়ার। তিনি বলেন, “আমি ব্যক্তিগতভাবে আত্মহত্যাকে ঘৃণা করি। জীবনে আনন্দ যেমন থাকবে, কষ্টও থাকবে। আত্মহত্যা কোনো সমাধান নয়।”

পিয়া আরো বলেন, “রাউদা আতিফ মালদ্বীপের তারকা মডেল। ভারতেও তার জনপ্রিয়তা ছিল। রাউদার ব্যাপক সম্ভাবনা ছিলো। হঠাৎ করে এই মেয়েটা কেন আত্মহত্যা করলো? ঠিক বুঝতে পারছি না। মাত্র ২০ বছরের একটা মেয়ে এভাবে আত্মহত্যা কেন করে? এভাবে জীবনকে শেষ করে দেয়া ঠিক হয়নি।”

রাওদা ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ১৩তম ব্যাচের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি মালদ্বীপের এম লেভেন্ডার হিগুইন মালে এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ আতিফের মেয়ে।

 

Check Also

বিদেশে নয় দেশের মাটিতেই বিয়ের পরিকল্পনা রকুল-জ্যাকির

সংবাদবিডি ডেস্ক ঃ রকুল প্রীত সিং ও জ্যাকি ভাগনানির বিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি। বিয়ের প্রস্তুতি এখন …