বিচারকের বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

যশোর প্রতিনিধি : : রুন অর রশিদ নামে সাতক্ষীরার এক সহকারী জজের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ এনেছেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী পরিচয়দানকারী জবা খাতুন নামে এক নারী। সহকারী জজ হারুন অর রশিদ খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরাঘোনা গ্রামের আব্দুস সামাদ শেখের ছেলে। তিনি সাতক্ষীরায় কর্মরত আছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জবা বিচারক হারুন অর রশিদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তোলেন। লিখিত বক্তব্যে যশোরের কেশবপুর উপজেলার বুড়ুলিয়া এলাকার মিজানুর রহমানের মেয়ে জবা খাতুন বলেন, প্রায় দুইমাস আগে হারুন অর রশিদ ঘটক পাঠিয়ে আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। এরপর দুই পরিবারের সম্মতিতে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি খুলনার রয়েল হোটেলে এক লাখ টাকা দেনমোহরে আমাদের বিয়ে হয়।’ তিনি বলেন, বিয়ের পর থেকে আমরা সাতক্ষীরার একটি ভাড়া বাসায় থাকতাম। কিন্তু তাকে (হারুন অর রশিদ) প্রায়ই অস্থির দেখাতো এবং মোবাইল ফোনে কারো সঙ্গে ঝগড়া করতেন। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলতেন, অফিসিয়াল বিষয়, বুঝবা না। হঠাৎ সাতক্ষীরার কলারোয়া এলাকার কামরুল হোসেন নামে এক ব্যক্তি আমাদের বাসায় আসেন। তিনি একটি কাবিননামার কপি দিয়ে জানান, তার মেয়ে সানজিদা আক্তার বীথির সঙ্গে হারুনের ২০১৩ সালের ২৬ এপ্রিল বিয়ে হয়। সে ঘরে দেড় বছর বয়সী একটি ছেলেসন্তানও রয়েছে তাদের। জবা খাতুন সাতক্ষীরার কুমিরা মহিলা কলেজে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক আইনে একটি মামলা (নম্বর : সিআর/৬৪/১৭ তারিখ- ১৯.০৩.১৭) এবং প্রতারণার একটি মামলা (নম্বর : সিআর/৭০/১৭ তারিখ: ২৩.০৩.১৭) দায়ের করেছেন বলে জানান।

Check Also

অগ্রণী ব্যাংকের এমডিসহ ৫ শীর্ষ কর্মকর্তার কারাদণ্ডের রায় স্থগিত

সংবাদবিডি ডেস্ক ঃ আদালতের আদেশ অমান্য করায় অগ্রণী ব্যাংকের এমডি মো. মুরশেদুল কবীরসহ পাঁচ শীর্ষ …