২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্ত মেট্রোরেলের কাজ শেষ হবে

ডেস্ক রিপোর্ট :

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্ত মেট্রোরেলের প্রথমটির কাজ শেষ হবে। ২০২০ সালের মধ্যে বাকিগুলোর কাজ শেষ করা হবে। মেসার্স টোকাইয়ো কন্সট্রাকশন সিপি ১ এর কাজ শুরু করেছে। সরকারের লক্ষ্য রয়েছে সিপি ২, সিপি ৩, সিপি ৪, সিপি ৮ এর কাজ শুরু করার।
আর বাকি কাজগুলো পরে শুরু করা হবে। সেই জন্য কাজ করছে ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রান্সজিট কোম্পানি লিমিটেড। তবে কাজ যে সময়ের মধ্যে শুরু করার কথা ছিল তাতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ২০১৬ সালের জুনে সিপি ১ এর কাজের উদ্বোধন করার পর বাকিগুলোর কাজ এখনও পর্যন্ত শুরু করতে পারেনি ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রান্সজিট কোম্পানি লিমিটেড।
ঢাকা মেট্রো রেল প্রকল্পর বাস্তবায়ন করে সরকার ঢাকার যানজট কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যে এর প্রাথমিক কাজও শুরু হয়েছে। আগামী ১৭ মার্চের মধ্যে মেট্রোরেল নির্মাণ প্রকল্পে কোম্পানিগুলোর টেন্ডার সংক্রান্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে সংশ্লিষ্ট সূত্রে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রান্সজিট কোম্পানি লিমিটেড নির্মিতব্য মেট্রোরেলের বাস্তবায়নের কাজ করছে। সিপি-১ এ মেসার্স টোকইয়ো কন্সট্রাকশন লিমিটেড চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ও সিপি-২ এ মেসার্স আইটিডি-সিনোহাইড্রো একক ভাবে টেন্ডার জমা দিয়েছে।
এছাড়া সিপি-৩ ও ৪ এ ভারতীয় কোম্পানি মেসার্স এল অ্যান্ড টি ও থাইল্যান্ডের কোম্পানি মেসার্স আইটিডি তাদের টেন্ডার জমা দিয়েছে এবং তাদের আর্থিক প্রস্তাব খোলা হয়েছে। সেখানে দেখা গিয়েছে মেসার্স এল অ্যান্ড টি প্রায় ২০০ কোটি টাকা কম মূল্য প্রস্তাব করেছে মেসার্স আইটিডি থেকে। মেসার্স এল অ্যান্ড টি কোম্পানি ইতোমধ্যে ভারত ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সফল ভাবে মেট্রোরেল নির্মাণ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করেছে।
ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানী লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও ডিএমটিসিএল বোর্ডের পরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো: মোফাজ্জল হোসেন বলেন, আমাদের লক্ষ্য রয়েছে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে আগারগাও থেকে উত্তরা পর্যন্ত মেট্রোরেলের প্রথমটির কাজ শেষ হবে। ২০২০ সালের মধ্যে বাকিগুলোর কাজ শেষ করা হবে।
তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, আমাদের ১ এর কাজ চলছে। ২, ৩, ৪ ও ৮ এর কাজ শুরু হবে আগামী তিন মাসের মধ্যে। এর আগেই আমরা কোম্পানীর সঙ্গে চুক্তিগুলো সম্পন্ন করবো। আর দরপত্রে যেসব কোম্পানী অংশ নিয়েছে এর মধ্যে কোন দেশী কোম্পানী নেই। জাপান, চীন, থাইল্যান্ড ও ভারতের কোম্পানীর কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ তাদের দর ও প্রস্তাবের মূল্যায়ন চলছে। অভিজ্ঞতাও রয়েছে এমন কোম্পানীকে প্রাধান্য দেওয়া হবে। কোম্পানীকে কাজ দেয়ার ক্ষেত্রে সর্বনিম্ম দরদাতাকে বাছাই করা হচ্ছে নাকি অন্যান্য দিকগুলো দেখা হচ্ছে এই ব্যাপারে তিনি বলেন, জাইকার গাইড লাইন রয়েছে সেগুলো অনুসরণ করা হচ্ছে।
তিনি জানান, ২০১৬ সালের জুনে প্রধানমন্ত্রী সিপি ১ এর কাজ এর উদ্বোধন করেন। আমরা ২,৩,৪,৮ এর কাজ শুরু করার ব্যবস্থা নিয়েছি। এখন টেন্ডারের মূল্যায়ন চলছে। মূল্যায়ন শেষে চুক্তি করা হবে। এই জন্য একুট সময় লাগছে।
উল্লেখ, মেট্রো রেলের বাস্তবায়নের জন্য মেসার্স আইটিডি যথাক্রমে সিপি-২ এর প্রকল্পের কাজ স্বল্পমূল্যে বাস্তবায়নের প্রস্তাবনা দিয়েছে। ভারতীয় কোম্পানি মেসার্স এল এন্ড টি সিপি-৩ ও ৪ এই প্রকল্পে আগ্রহ দেখিয়েছে। আইটিডি ইতিমধ্যে তাদের অংশগ্রহণের কথা জানিয়েছে। এল এন্ড টি কোম্পানি ইতোমধ্যে ভারতে ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে মেট্রো রেল নির্মাণ প্রকল্পে কাজ করলেও এই প্রথমবারের মতো কোম্পানিটি ঢাকা শহরে প্রকল্প বাস্তবায়ন করার আগ্রহ দেখিয়েছে। মেট্রোরেল নির্মাণ প্রকল্পে কোম্পানিগুলোর টেন্ডার সংক্রান্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এ বছরের মার্চের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি পুরো শহরের ট্রাফিক সমস্যা অনেকটা কমিয়ে আনবে। ৬ লাইনের ঢাকা মোট্রো রেল প্রকল্পটি প্রায় ২০.১ কিলোমিটার দীর্ঘ ও প্রস্তু ১৮০ মিটার এবং এর ১৬টি এলিভেটেড স্টেশন থাকবে। পুরো লাইনে থাকবে ইলেকট্রিক লাইট। নির্মিতব্য এই প্রকল্পটি ৮ টি নির্মাণাধীন প্যাকেজের (সিপি) অধীনে থাকবে। কনট্রাকশন প্যাকেজ (সিপি) গুলো হলো: সিপি-১ ( ডিপোট ল্যান্ড ডেভলাপমেন্ট), সিপি-২ ( ডিপো সিভিল এন্ড বিল্ডিং), সিপি-৩ ও ৪ ( উত্তরা-আগারগাঁও), সিপি-৫ ও ৬ (আগারগাঁও- মতিঝিল), সিপি-৭ (ইলেকট্রো-মেকানিক্যাল সিস্টেম) ও সিপি-৮ (রোলিং স্টক ও ডিসোট ইকুইপমেন্ট)।

Check Also

বিদেশে নয় দেশের মাটিতেই বিয়ের পরিকল্পনা রকুল-জ্যাকির

সংবাদবিডি ডেস্ক ঃ রকুল প্রীত সিং ও জ্যাকি ভাগনানির বিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি। বিয়ের প্রস্তুতি এখন …