সংস্কৃতি মেনে কনটেন্ট প্রকাশের প্রতিশ্রুতি ফেসবুকের

ফেসবুক প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

ঢাকা: কনটেন্ট প্রকাশের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের আইনি কাঠামো ও সংস্কৃতি মেনে চলার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বাংলাদেশে ফেসবুকের অফিস খোলা এবং বাংলা ভাষার সঠিক অনুবাদ ও প্রয়োগের বিষয়টি গুরুত্ব দেবে ফেসবুক।

স্পেনের বার্সেলোনায় মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ফেসবুক প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে আহ্বান জানালে এসব প্রতিশ্রুতি এসেছে বলে জানিয়েছে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মন্ত্রী বাংলাদেশে পর্নোগ্রাফি, পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস, প্রোপাজ্ঞান্ডাসহ নানাবিধ নিরাপত্তা বিষয়ে বাংলাদেশের রেগুলেশন মেনে নিরাপদ ফেসবুক ব্যবহারের ব্যবস্থা করার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশ, আমাদের সমাজ, আমাদের নাগরিকদের ফেসবুকের নিরাপদ ব্যবহারের সুযোগ দিতে হবে।

মোস্তাফা জব্বার বাংলাদেশের আইন, আবহমান বাংলার চিরায়ত সংস্কৃতি, মূল্যবোধ এবং নিয়মনীতি স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, বাংলাদেশে আইন আছে, সেই আইন মোতাবেক ফেসবুককে কনটেন্ট এবং অন্যান্য বিষয়গুলো বাস্তবায়ন করতে হবে।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী ওই বৈঠকে নানা বিষয়ে আলোচনার মধ্যে নাগরিক সুরক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় প্রত্যয়ের বিষয়টিও প্রাধান্য পায়।

বৈঠকে ফেসবুকের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ফেসবুকের গ্লোবাল পলিসি সলিউশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট রিচার্জ অ্যালান এবং সাউথ এশিয়ার হেড অব পলিসি অশ্বিনি রানা।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ কন্টেন্ট প্রকাশে তাদের গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ডের বিষয়টি তুলে ধরেন। বৈঠকৈ ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশের আইনি কাঠামো ও সংস্কৃতি মেনে চলার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে। এ সময় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ উল্লেখ করে তাদের সিস্টেম হতে পর্নোগ্রাফি সরিয়ে নেওয়ার কার্যক্রম চলছে, এটি ভবিষ্যতেও চলবে।

ফেসবুক কন্টেন্ট বিষয়ে বিদ্যমান যেকোনো সমস্যা দ্রুত সমাধানের জন্য বাংলাদেশে অফিস খোলার বিষয়ে মন্ত্রী গুরুত্বারোপ করে বলেন, রেসপন্স টাইমের বিষয়ে ফেসবুক যে দীর্ঘসূত্রিতা নেয় সেটিকে ইমিডিয়েট রেসপন্স টাইমে আনতে হবে।

মন্ত্রী উল্লেখ করেন, সরকার কখনও চায় না ইন্টারনেট বন্ধ করতে। বাংলাদেশের ৯৫ ভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী মোবাইলে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষও বাংলাদেশে তাদের অফিস খোলার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নেয়ার কথা উল্লেখ করেছেন বৈঠকে।

ফেসবুককে সঠিকভাবে বাংলা ভাষায় অনুবাদ এবং প্রয়োগ করতে বলে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জানিয়েছেন, ফেসবুক যদি এই সক্ষমতা অর্জন করার ক্ষেত্রে সহযোগিতা চায়, সে লক্ষ্যে শেখ হাসিনার সরকার সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা করবে।

মন্ত্রী বলেন, ফেসবুকে বাংলা ভাষা ব্যবহারে কিছু সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা দূর করতে হবে। বাংলা ভাষাভাষী মানুষ যেন ফেসবুকে বাংলা পড়তে কোনো অসুবিধার মধ্যে না পড়েন।

মন্ত্রীর প্রস্তাবে অনুবাদসহ বাংলার ভাষার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে বলে জানান ফেইসবুকের গ্লোবাল পলিসি সলিউশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট রিচার্জ অ্যালান।

বার্সেলোনায় ২৫-২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চারদিনব্যাপী এ কংগ্রেসে মন্ত্রী ৯ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

প্রতিনিধি দলের অপর সদস্যরা হলেন- ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মহিবুর রহমান, বিটিআরসি চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, টেলিটকের ব্যবস্তাপনা পরিচালক (এমডি) মো. শাহাব উদ্দিন, টেলিযোগাযোগ বিভাগের উপসচিব ঊর্মি তামান্না, মন্ত্রীর একান্ত সচিব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান, টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের পরিচালক মো. তাসকিনুর রহমান, বিটিআরসির উপ-পরিচালক খালেদ ফয়সাল এবং মো. সোহেল রানা।

Check Also

খালেদার নামে তোলা হচ্ছে বগুড়া-৬ আসনের মনোনয়ন

বগুড়া-৬ আসনে উপনির্বাচনে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নামে মনোনয়ন ফরম তোলার জন্য ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান …