উপজেলা নির্বাচন শুরু মার্চে

সংসদ নির্বাচনের পর এবার দেশের প্রায় ৫শ’ উপজেলা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। আগামী মার্চে এসব উপজেলার ৫ বছর মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। কমিশন সূত্র বলছে- পাঁচ থেকে ছয়টি ধাপে ৪৯১টি উপজেলায় এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হবে। এ নির্বাচনে আগের চেয়ে আরো বেশি ইভিএম ব্যবহার করতে চায় ইসি।
জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো মাত্র কয়েকদিন আগেই। এর মধ্যেই শুরু হয়ে গেছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি। মার্চ মাসে প্রথম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতির কথা জানান নির্বাচন কমিশন সচিব।
১৯৮২ সালে প্রথম উপজেলা পরিষদ পদ্ধতি প্রবর্তন করে তৎকালীন এরশাদ সরকার। ৪শ ৬০ উপজেলা গঠনের পর প্রথম নির্বাচন হয় ১৯৮৫ সালে। এরশাদের পতনের আগে ১৯৯০ সালে দ্বিতীয়বার হয় উপজেলা নির্বাচন। ৯১’ তে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর উপজেলা পদ্ধতি বাতিল করে। ৯৬-তে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে আবার চালু উপজেলা পদ্ধতি বহাল করলেও সেবার নির্বাচন হয়নি। ৪শ’ ৬৭টি উপজেলায় তৃতীয়বার নির্বাচন হয় ২০০৯ সালে। সর্বশেষ চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হয় ২০১৪ সালে। সেবার ৫ ধাপে নির্বাচন হয় ৪৫৮ উপজেলায়।
৪শ’ ৬৭ উপজেলায় ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রদত্ত ভোটের হার ৬৭ শতাংশের বেশি। ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায় আওয়ামী লীগ ৩শ ০৬, বিএনপি ৭৭, জামায়াত ২০, জাতীয় পার্টি ২০ ও অন্যান্যরা ৪৪টি উপজেলায় জয়ী হয়।
সর্বশেষ ২০১৪ সালে চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৪৫৮ উপজেলার মধ্যে আওয়ামী লীগ ২শ ২১টি, বিএনপি ১শ৫৬, জামায়াত ৩৬, জাতীয় পার্টি ৩, জনসংহতি সমিতি ৬, ইউপিডিএফ ১ এলডিপি ১, জাতীয় পার্টি (জেপি) ১ ও অন্যন্য দল ৩৩ উপজেলায় বিজয়ী হয়।
৪শ’ ৯১ উপজেলায় এবারই প্রথম নির্বাচন হবে দলীয় প্রতীকে। এর মধ্যে ৪শ৫৮ উপজেলার মেয়াদ শেষ হবে এবছরের মার্চ ও এপ্রিল মাসে। উপজেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী মেয়াদ শেষ হবার পূর্বের ৬ মাসের মধ্যে নির্বাচন হতে হবে। এবার আগের চেয়ে বড় পরিসরে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলেও জানা যায় ইসি সূত্র থেকে।

Check Also

সব তাল ঠিক রাখতে গিয়ে সমালোচনা কুড়াচ্ছেন কলকাতার নায়িকা নুসরাত জাহান

সম্প্রতি শেষ হওয়া ভারতের লোকসভা নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর সিদ্ধান্ত নেন বিয়ের। পাত্র প্রেমিকা লিখিল …